1. info@dailyalokitosangbad.com : ডেইলি আলোকিত সংবাদ : ডেইলি আলোকিত সংবাদ
  2. info@www.dailyalokitosangbad.com : ডেইলি আলোকিত সংবাদ :
শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ০৯:৩৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
জাতীয় শিশু কিশোর প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন কুতুবদিয়ার মেহেজাবিন চৌধুরী শেরেবাংলা পদক পেলেন ছাতকের সাংবাদিক খালেদ আমি যদি নির্বাচিত হই, সদর দক্ষিণের সকল প্রকার চাঁদাবাজী বন্ধ করবো : ইঞ্জি: রিপন জাতীয় সাংবাদিক সংস্থা ‘র কুমিল্লা বিভাগীয় পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন তিতাস উপজেলায় মে দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা ও র‍্যালী অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী সারোয়ার হোসেন বাবুর উদ্যোগে ঠাণ্ডা পানি ও স্যালাইন বিতরন কুমিল্লার দেবীদ্বারে ভারতীয় বিভিন্ন ব্র্যান্ডের ১৫০বোতল মাদক উদ্ধার ও একজন গ্রেফতার জেলা সদস্য মোঃ দেলোয়ার হোসেন পলাশ এর উদ্যোগে ঠাণ্ডা পানি ও স্যালাইন বিতরন তিতাসে ইসতিসকার নামাজ পড়ে বৃষ্টির জন্য কাঁদলেন মুসল্লিরা তিতাসে শ্রমিক কল্যাণের উদ্যোগে ঠান্ডা পানি, শরবত ও খাবার স্যালাইন বিতরন

মুরাদনগরে ৩ হাজার বিঘা কৃষি জমি ৩০ বছর পানির নীচে চাষাবাদযোগ্য করতে কৃষকদের পাশে স্থানীয় এমপি

  • প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪
  • ১২ বার পড়া হয়েছে

মুরাদনগরে ৩ হাজার বিঘা কৃষি জমি ৩০ বছর পানির নীচে চাষাবাদযোগ্য করতে কৃষকদের পাশে স্থানীয় এমপি

 

মোঃ বিল্লাল হোসাইন,স্টাফ রিপোর্টার

কুমিল্লার মুরাদনগরে প্রায় তিন হাজার বিঘা কৃষি জমি ত্রিশ বছর যাবত পানির নীচে। এই নিয়ে কৃষকের মাঝে চলছিল কষ্টের হাহাকার । জলাবদ্ধতায় ডুবে থাকা জমিগুলো হলো উপজেলার জাহাপুর ইউনিয়নের রানীমুহুরী, বল্øভদী, কাচারীকান্দি, বড়িয়াকুড়ি, নোয়াকান্দি, তিতারকান্দি ও রতননগর গ্রামের।
জমিগুলোকে চাষাবাদযোগ্য করতে রবিবার দুপুরে উপজেলার জাহাপুর ইউনিয়নের রানীমুহুরী স্কুল মাঠে কৃষকদের সাথে আলোচনা সভা করেছেন নবনির্বাচিত সংসদ সদস্য আলহাজ¦ জাহাঙ্গীর আলম সরকার।
তিনি বলেন, “ যেখানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বলেছেন একতোলা জমিও যেন চাষাবাদের বাহিরে না থাকে। সেখানে তিন হাজার বিঘা জমি ত্রিশ বছর পরে আছে। আমি কাজটা হাতে নিয়েছি। কৃষকরা যেন দ্রæত সময়ের মধ্যে তিন হাজার বিঘা জমিতে ফসল ফলাতে পারেন সেই ব্যবস্থা করবো।
এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা পাভেল খাঁন পাপ্পু, উপজেলা প্রকৌশলী রায়হানুল আলম চৌধুরী, জাহাপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সৈয়দ সওকত আহমেদ, ২শতাধিক কৃষক ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ।
সরেজমিন গিয়ে জানা যায়, প্রায় ত্রিশ বছর যাবত ছয় শত কৃষকের ৩ হাজার বিঘা জমি পানির নীচে তলিয়ে আছে। দীর্ঘদিনের এই সমস্যা নিরসনে কেউ এগিয়ে আসেনি। বিশাল এলাকা জুড়ে বাঁধের কারনে এই জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে । কৃষকরা জমিগুলো চাষাবাদ করতে পারছেন না । ফলে সাত গ্রামের শত শত কৃষক অভাব অনটনের সাথে লড়াই করছেন।
বড়িয়াকুড়ি গ্রামের কৃষক আক্তার (৫০) বলেন, এই বাঁধের ভীতর আমার ১৪ বিঘা জমি থাকার পরও গতকাল আমি ১০ কেজি চাল কিনে আনছি। সারা বছর পানি লেগে থাকে বিধায় জমি গুলো কোন কাজে আসেনা। ছেলে মেয়ে নিয়ে খুব কষ্টে জীবনযাপন করছি।
কৃষক আবদুল বারেক (৬০) জানান, এই জলবদ্ধতা ত্রিশ বছর । আমার ৫ বিঘা জমি অকেজো হয়ে পড়ে আছে। এক শতক জায়াগাও ব্যাবহার করতে পারিনা। চাষাবাদ করতে না পারায় সারাবছর চাল কিনে খেতে হয়।
এছাড়াও জলাবদ্ধতা থেকে কৃষি জমি উদ্ধার করতে শতো শতো কৃষক একত্রিত হয়ে এমপি বরাবর দাবি জানান।
১৭নং জাহাপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সৈয়দ সওকত আহমেদ বলেন, ত্রিশ বছর যাবত প্রায় তিন হাজার বিঘা জমি জলাবদ্ধতায় ডুবে আছে। কৃষকরা ফসল ফলাতে পারছেনা। বিগত দিনের এমপিরা এই নিয়ে কোন পদক্ষেপ নেয়নি। বর্তমান সাংসদ পরিদর্শনে আসছেন। স্যার যদি এই সমস্যা সমাধান করে দেন আমরা ইউনিয়নবাসী কৃতজ্ঞতার বন্ধনে আবদ্ধ থাকবো।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা পাভেল খানঁ পাপ্পু বলেন, ত্রিশ বছর ধরে প্রায় ৩ হাজার বিঘা জমিতে কোন চাষাবাদ হয়নি। বিভিন্ন কারণে এটা অনাবাদি রয়েছে। কিছু জায়গায় জলাবদ্ধতা আবার কিছু জায়গায় খাল খননের প্রতিবন্ধকতা রয়েছে। আমরা একটা সার্ভে প্লান করে এমপি মহোদয়ের কাছে দিবো। চেষ্টা করবো আগামী মৌসম থেকে যেন এখানে চাষাবাদ শুরু করতে পারি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
𝐂𝐫𝐚𝐟𝐭𝐞𝐝 𝐰𝐢𝐭𝐡 𝐛𝐲: 𝐘𝐄𝐋𝐋𝐎𝐖 𝐇𝐎𝐒𝐓